[X]

স্মার্টফোন কেনার আগে আপনার যা জানা উচিৎ [গাইড]

 বর্তমান যুগে মোবাইল বাজার এন্ড্রোয়েড ফোনের ব্যাপক ব্যবহার বিস্তৃতি লাভ করেছে। এন্ড্রোয়েড বা স্মার্টফোনে মুভি দেখা, হাই ডেফিনেশন গেইমস খেলা, ভিডিও ও ইমেজ এডিটিং, ক্যামেরা, মাইক্রোসফট অফিস – কি নেই! আসুন দেখা নেয়া যাক এন্ড্রোয়েড ফোন কেনার আগে আমাদের কোন কোন বিষয়গুলো গুলো দেখে নেয়া দরকার।

choose-right-smartphone

প্রথমেই এন্ড্রোয়েড কেনার সিদ্ধান্ত নেবার জন্য আপনাকে শুভেচ্ছা জানাতেই হয়। শুভেচ্ছা কারন এন্ড্রোয়েড একটি চমৎকার সিস্টেম এবং এটি পাওয়া যায় নিজের পছন্দের দামে এবং নিজের পছন্দের চাহিদা অনুযায়ী। তবে এটা মনে কাজ করতেই পারে পারে, এতো ফোনের ভিড়ে নিজের ফোনটি কোনটি। কেনার সময় কি কি চিন্তা করা উচিত এবং নিজের জন্য সঠিক পছন্দ কোনটি হবে ইত্যাদি নিয়ে নানা ধরণের চিন্তা আমাদের মাঝে কাজ করতে পারে । তবে ভাবনার কিছু নেই, এতো অপারেটিং সিস্টেম এবং ভেন্ডরের মধ্যে আপনার পছন্দের সেটটি কিনতে চলুন কিছু টিপস দেখে নেয়া যাক। তাহলে দেখে নিন এবং হয়ে যান এক্সপার্ট নিজের সেটের ক্রেতা হিসাবে।

১) নিজের কাজের চাহিদা বুঝে সেট নিন

how_to_buy_a_smartphone_part_1-600x273

 

যদিও সেট কেনার আগে অনেকেই এটা চিন্তা করেন না, তবে এটাই শুরুতে ভাবা উচিত, আমি এন্ড্রোয়েড ফোনে কি কি কাজ করবো। শুধু কি ফোন, মেসেজ আর মেইল পাঠানোর সাথে সাথে ছায়াছবি দেখা এবং গেম খেলাতেই নিজেকে সীমাবদ্ধ রাখতে চান? নাকি করতে চান রুট এবং প্রোগ্রামিং? অথবা চালিয়ে যেতে চান অবিরাম ক্লিক ক্লিক করে ছবি তোলা?

 

কেমন ধরণের সেট কিনতে চান, বেশী দামী অথবা কমদামী সেট? যদি ছায়াছবি দেখা এবং ওয়েবে সার্ফিংয়েই কাটান তবে বড় ডিসপ্লে আপনার জন্য। তাতে বই পড়তেও সুবিধা পাবেন।

যদি ছবি তোলার নেশা থাকে তবে নিতে পারে ভালো ক্যামেরা সংযুক্ত সেট। ভালো ইন্টারনেট ও নেটওয়ার্ক চাইলে ৪জি এবং এলটিই সমর্থন করা সেট বেছে নিন। তবে স্মার্টফোনের দাম বেশি হয় বলে দেখে শুনে নিশ্চিত হয়ে কেনাই ভালো। ইন্টারনেট-সুবিধার এ যুগে ইন্টারনেট থেকে কাঙিক্ষত স্মার্টফোনটির তথ্য জেনে নিয়ে তবেই বাজার থেকে তা কিনতে পারেন। কি কি ফিচার আপনার প্রয়োজন এবং আপনি কোন ধরণের পেশার সাথে জড়িত সেটাও ভেবে নিয়ে সেট কেনাই ভালো।

২) ব্যাটারি

battery-600x580

 

স্মার্টফোন কেনার সময় খেয়াল রাখবেন ব্যাটারির mAh যেনও বেশী হয় কারণ ব্যাটারির যত mAh বেশী হবে ততই আপনার সেট ভালো চলবে। তবে এতে সেটের ওজনও বেড়ে যেতে পারে। তবুও স্মার্টফোন ব্যবহার করেন কিন্তু ফোনের ব্যাটারি লাইফ নিয়ে চিন্তা নেই এমন মানুষ কমই পাওয়া যাবে। একদিকে যেমন উজ্জ্বল পর্দা এবং শক্তিশালী প্রসেসরের চাহিদা বাড়ছে অন্যদিকে ফোনের চার্জ দ্রুত ফুরিয়ে আসছে।

এদিকে ২০১৪ সালে স্মার্টফোনের ব্যাটারি পরিস্থিতিতে কিছুটা পরিবর্তন আসবে। ২০১৪ সালে স্মার্টফোন কোন কোন ফিচার নিয়ে আসবে তা নিয়ে জল্পনা কল্পনা চলছে অনেকদিন ধরে। ঘুরে ফিরে আলট্রা এইচডি ডিসপ্লে, রেটিনা স্ক্যানার কিংবা নমনীয় পর্দা – এই সকল ফিচারকেই ধরে নেয়া হচ্ছে আগামী দিনের স্মার্টফোনের বৈশিষ্ট্য। তবে স্যামসাং সম্প্রতি ঘোষণা দিয়েছে সোলার সেল যুক্ত স্মার্টফোন বাজারে আনার। স্যামসাং এর এই সিদ্ধান্ত অমূলক নয়।। কিছুদিন থেকে শোনা যাচ্ছে স্যামসাং এর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাপল সফল হয়েছে সোলার সেল দিয়ে ভবিষ্যৎ স্মার্টফোন চার্জ করার সফল প্রযুক্তি উদ্ভাবনে। স্যামসাংও তাই আর দেরি না করে সচেষ্ট হয়েছে একই পন্থা অবলম্বনে। যদিও স্যামসাং এখন অধিক সময় ব্যয় করছে উন্নত প্রযুক্তির ডিসপ্লে নিয়ে, এবার হয়ত তারা কিছুটা মনোযোগ দেবে এই দিকে। আর অ্যাপল এবং স্যামসাং উভয়ই যদি সোলার সেল সহ স্মার্টফোন বাজারে নিয়ে আসে, হয়ত ভবিষ্যতে স্মার্টফোন কেনার আগে র‍্যাম এবং প্রসেসর এর সাথে দেখে নিতে হবে ফোনে সোলার সেল আছে কিনা।

৩) শক্তিশালী কাঠামো

why-you-should-sell-your-old-smartphone-every-time-you-buy-a-new-phone-600x450

 

SAR value যেন কোন ভাবে ২ এর বেশী না হয়। এর বেশী হলে তা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। সাউন্ড সিস্টেম এর মান যেন ভালো হয়। ব্লুটুথ এর ভার্সন কত, Wi-Fi গতি ইত্যাদি দেখে নিন। দ্রুতগতির প্রসেসরযুক্ত স্মার্টফোন পছন্দ করুন, যাতে আপনার পছন্দের অ্যাপ্লিকেশন গুলো স্বচ্ছন্দে চালাতে পারেন।

 

স্মার্টফোন কেনার জন্য বাজেট বেশি হলে ডুয়াল কোরের প্রসেসরযুক্ত স্মার্টফোন বেছে নিতে পারেন। প্রসেসরের পাশাপাশি বেশি ক্ষমতার র‌্যাম আছে কি না, তা খেয়াল করে দেখতে পারেন। দেখে নিন তথ্য ধারণের জন্য স্মার্টফোনটিতে কতটা জায়গা রয়েছে বা অতিরিক্ত কতটা মেমোরি সমর্থন করবে।

 

খেয়াল করুন ডিসপ্লে, রেজুলেশন। এ ছাড়াও ক্যামেরা, সেন্সর, ব্লু-টুথ, ইউএসবি, জিপিইউ ক্ষমতা দেখে নিন। আপনার পছন্দের অপারেটিং সিস্টেম অনুযায়ী কিনুন স্মার্টফোনটি। কেনার সময় ব্যাটারিতে চার্জ থাকে কতটা এবং স্মার্টফোনের সাউন্ড কেমন সেটা যাচাই করুন।

স্মার্টফোনের আরেকটি অপরিহার্য অংশ হল RAM এর ক্ষমতা। RAM যত বেশী হবে কাজের পারফমেন্স আর স্পীড দুইই বেশী হবে। পাশাপাশি ফোন কেনার সময় সার্ভিস ও ওয়ারেন্টির বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে নিন। অনেকে ক্যামেরা বলতে মেগা পিক্সেলকে বুঝলেও এটি ক্যামেরার প্রধান দিক নয়। মেগাপিক্সেল ছাড়াও লেন্স এর এর সেন্সর, ছবির রেজু্লেসন, অটোফোকাস, ফ্ল্যাশলাইট, geo-tagging, face detection ইত্যাদি আছে কিনা সে সম্পর্কে জেনে নিন। এছাড়া ভিডিও কোয়ালিটি, Secondary ক্যামেরা আছে কিনা জেনে নিন। তবে ক্যামেরা ৫ মেগাপিক্সেলের নিচে কেনা উচিত না।

এছাড়া মোবাইল ফোন দৈনন্দিন ব্যবহারের একটা অংশ। অনেক সময় অসাবধানতায় ফোন হাত থেকে পড়ে যেতে পারে কিংবা বাসায় ফোন বাচ্চা থাকলে তারা মোবাইলে গেমস খেলার দিকে অনেক উৎসাহী হয়ে ওঠে। সেক্ষেত্রে মোবাইলে যাতে স্ক্র্যাচ না পড়ে বা পানি বা তরল জাতীয় কিছু যাতে না লাগে তাই স্ক্রীনের উপরে গ্লাস পেপার লাগানো উচিত। অনেক সেটেই এখন গরিলা গ্লাস থাকে। এটি বেশ স্বচ্ছ এবং মজবুত।

 

৪) অ্যাপ্লিকেশান এবং এর আপডেট

featureinage_AP-600x338

অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন বা ট্যাবলেট ব্যবহারের অন্যতম সুবিধা হচ্ছে গুগল প্লে স্টোরে থাকা হাজার হাজার অ্যাপ্লিকেশনের বাহার। আপনিই জানবেনই না এসব অ্যাপ্লিকেশনের কোনো কোনোটা আপনার কতোটা কাজে আসবে যতক্ষণ পর্যন্ত না আপনি সেটি ব্যবহার করছেন। এই বিশাল অ্যাপ্লিকেশনের ভাণ্ডার থেকে কাজের অ্যাপ্লিকেশনটি খুঁজে বের করা ব্যস্ত মানুষের জন্য বেশ শক্ত কাজ হয়ে দাঁড়াতে পারে। তাই অ্যান্ড্রয়েড ৪.১ জেলিবিন এর সেট কেনা উচিত। যদিও এন্ড্রোয়েড ২.৩ জিঞ্জারব্রেড অনেকেরই মন জিতেছে, তবে বর্তমানে আস্তে আস্তে তা পুরানো হয়ে যাচ্ছে। আর অনেকেই গ্রাফিক্স প্রসেসর ইউনিট (GPU) সম্পর্কে অবহিত নয় অথচ এটি ছাড়া আপনি হাই গ্রাফিক্স এর কোন গেমস গেমস খেলতে পারবেন না। অনেক সেট এ বিল্ট-ইন GPU থাকলেও তার পারফরমেন্সে অত ভাল না।

৫) খরচ ও জনপ্রিয় সেট

ku-xlarge-600x337

দাম অনেকের কাছে একটা জরুরী বিষয়। যারা জনপ্রিয় এবং সহজ সেট চালাতে চান, যেমন আইফোন, তাদের কাছে দাম কোন বিষয়ই নয় বরং তা সামাজিক সম্মানেরও বিষয়, তবে অন্যদিকে সেটা বাজেট ছাড়িয়ে যেতে পারে। যদি আপনি চান কাজের পাশাপাশি হাতে দেখানোর মত একটি সেট, তবে অবশ্যই আপনার বাজেট বাড়াতে হবে। আর যদি আপনি সল্প বাজেটে নিতে চান একটি স্মার্টফোন, তবে ভাবতে হবে উপরের বিষয়গুলো এবং পাশাপাশি বাজার ঘুরে বেছে নিতে হবে আপনার কাজের চাহিদা অনুযায়ী ফোন। টাকা দেবেন, সুতরাং জিজ্ঞাসা করুন বিক্রেতাকে মনে যত প্রশ্ন আসে, পাশাপাশি নিজেও দেখে নিন।

বর্তমানে Android অপারেটিং সিস্টেম সবচেয়ে জনপ্রিয় হলেও চেষ্টা করবেন এমন সেট নিতে যাতে অন্তত যাতে সর্বশেষ ভার্সনটি update করা যায়। আর কিনে নিন আপনার প্রিয় স্মার্টফোনটি। বাজারে যেহেতু নানা ধরণের এবং নানা দামের এন্ড্রোয়েড সেট পাওয় যায় তাই একটু সময় নিয়ে কয়েক দোকান ঘুরে ঘুরেই ফোন কেনা উচিত। এছাড়া আর কয়েক বছরের মাঝেই হয়তো টু- জি সেট এর ব্যবহার কমে যাবে তাই থ্রী জি নেটওয়ার্ক দেখেই কেনা উচিত। এছাড়া মোবাইলের ওজন, মোবাইলের স্ক্রীন সাইজ এসবও দেখে নেয়া উচিত।

আপনাদের সুবিধার জন্য কিছু ফোনের মডেল সাজেশন দেয়া হলো, –  Galaxy S2HTC One , HTC One XHTC Sensation, HTC Rezound, HTC MyTouch 4G, and Motorola Droid Razr Maxx, Sony Xperia Sola, HTC Cha Cha, or Samsung Galaxy Mini 2 ইত্যাদি। দুনিয়া স্মার্ট হচ্ছে, আপনি হচ্ছেন কবে?

Updated: October 31, 2014 — 1:00 pm

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copyright SmartZoneBD © 2013-2016, All Rights Reserved.